1. ahekram2006@gmail.com : ah ekram : ah ekram
  2. asadmd7195@gmail.com : JB Admin : JB Admin
  3. janatarbartabd@gmail.com : jb editor : jb editor
সাগরে মাছ ধরেই চলে তাদের সংসার - দৈনিক জনতার বার্তা
সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:১০ পূর্বাহ্ন

সাগরে মাছ ধরেই চলে তাদের সংসার

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ২২ মার্চ, ২০২২

শাহ জামাল, পেকুয়া কক্সবাজারঃ

কেউবা যাচ্ছে সাগরে মাছ ধরতে, আবার কেউ কেউ মাছ ধরে এসে জাল বুনতে শুরু করে ফের মাছ শিকার করতে যাবার জন্যে। এভাবেই জীবন কাটে তাদের। গতকাল মঙ্গলবার এমন দৃশ্যের দেখা মেলে উপজেলার রাজাখালী ইউনিয়নের সুন্দরী পাড়া এলাকা।

জানা যায়, উপজেলার রাজাখালী বকশিয়া ঘোনা ও সুন্দরী পাড়ার বেড়িবাঁধ ঘেঁষে বাস করে হাজার হাজার মানুষ। এদের অনেকেই বংশ পরস্পরায় জেলে। জাল আর সাগরের জল এদের জীবনসঙ্গি। উত্তাল ঢেউ ডিঙ্গিয়ে এরা পাড়ি দেয় গহীন সাগরে। সাগরের অথই জলের ঢেউয়ে দোলা খায় তাদের ছোট্ট ছোট্ট মাছ ধরার ডিঙ্গি। দোলা খায় ওদের ছেঁড়াখোঁড়া টোটকা জীবন। প্রকৃতি, সাগর আর আকাশ দেখে দেখে ওরা পথ চলে। এই সাগর কখনো ওদের মায়াবী রোমাঞ্চে কাছে টানে। আবার কখনো রুদ্র রুক্ষতায় ফুলে ফুঁসে ওঠে। সাগরের এই রাগ, অভিমান আর শান্ত স্বভাব ওরা বুঝেশুনে চলে। এদের প্রকৃতি থেকে শিক্ষা নেয়া জ্ঞান ভান্ডারে জমা হয়ে আছে অফুরন্ত সম্পদ। যুগ যুগ ধরে কুড়ানো এই অভিজ্ঞতা ও তাদের বেশ ভারী।

ডিঙ্গি নৌকায় ভেসে সাগরে জাল পেলে মাছ ধরে উপজেলার রাজাখালী ইউনিয়নের সাগর পাড়ের বাসিন্দা সুন্দরী পাড়া গ্রামের কাছিম মাঝি । এখানে তার মতো আরও অনেকেই আছেন, যাদের সংসার চলে শুধু মাছ শিকার করে। বলা যায় মাছ শিকারই তাদের জীবন-জীবিকা। অন্য কোন কাজ তারা করেন না। প্রায় সারা বছর মাছ ধরেই তারা জীবিকা নির্বাহ করেন। একই অবস্থা এই অঞ্চলের বহু মানুষের।

কাছিম মাঝি বলেন, মাছ শিকার করেই চলছে তার এবং তারই মতো আরও বহু পরিবারের জীবন-সংসার। তিনি আরও বলেন, জীবিকার প্রয়োজনে দিন নেই, রাত নেই সমস্ত প্রাকৃতিক দুর্যোগ দুর্বিপাক উপেক্ষা করে বছরের পর বছর শুধু মাছ শিকার করেই চলেছি। এখন এটাই পেশা, এটাই নেশা। এর রোজগার দিয়েই স্ত্রী, ছেলে-মেয়েদের পড়ালেখাসহ সংসার চলে তার। এমন কাজে জীবন পার করে দিলেও এরা কিন্তু স্বীকৃত জেলে বা মৎস্যজীবী নন। এদের বিশেষ আর কোন পরিচয়ও নেই। অথচ মাছ ধরে বা বেঁচেই কেটে যাচ্ছে জীবন আর যৌবন।

আরেকজন মৎস্য শিকারি জামাল মাঝি বলেন, প্রায় ৩০ বছর জেলে কাছ করি। উত্তাল সাগর পাড়ি দিয়ে মাছ ধরে চলে আমার সংসার। শুধু আমি নয় এই এলাকায় অনেকেই জেলে কাজ করে তাদের জীবন জীবিকা নির্বাহ করে।

একই এলাকার রাজ্জাক মাঝি (৪০) জানান, ১৫-২০ বছর ধরে সাগরে মাছ শিকার করছেন তিনি। মাছ শিকার করে সংসার চলে তার। এই আয় দিয়ে চলে সাত সদস্যের সংসার । জমি-জমা না থাকায় ছোট থেকেই এই পেশায় জড়িয়ে আছেন তিনি। ছেলে মেয়েদের লেখাপড়ার খরচ চলে মাছ শিকারের টাকায়।

পেকুয়া উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আনোয়ারুল আমিন বলেন, পেকুয়া উপজেলায় সাগর পাড়ে বাস করে এমন অনেকই আছে। যারা বছরের পর বছর জেলে কাজ করে জীবন ও তাদের সংসার চালায়। যারা প্রকৃতি জেলে কাজ করে অথচ জেলে হিসেবে স্বীকৃতি নেই। খোঁজ নিয়ে তাদের প্রকৃতি জেলে তালিকায় আনা হবে।

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরও খবর
© ২০২০ সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত | দৈনিক জনতার বার্তা বিডি পরিবার
কারিগরি সহায়তায় রাফিউল ইসলাম