1. ahekram2006@gmail.com : ah ekram : ah ekram
  2. asadmd7195@gmail.com : JB Admin : JB Admin
  3. janatarbartabd@gmail.com : jb editor : jb editor
চাঁদপুর শহরে চার সন্তানের জনকের ধর্ষণের শিকার পঞ্চম শ্রেণীর পড়ুয়া শিক্ষার্থী, ধর্ষক জেলহাজতে। - দৈনিক জনতার বার্তা
রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৬:০০ পূর্বাহ্ন

চাঁদপুর শহরে চার সন্তানের জনকের ধর্ষণের শিকার পঞ্চম শ্রেণীর পড়ুয়া শিক্ষার্থী, ধর্ষক জেলহাজতে।

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
পুলিশ সুপার চাঁদপুর এর নির্দেশে পঞ্চম শ্রেণীতে পড়ুয়া শিশু কন্যা রুপাকে বিয়ের নামে ধর্ষণের দায়ে স্ক্রাপ ( ভাঙ্গাচুরা) ব্যবসায়ী লম্পট মোহাম্মদ আলীকে আটক করলো চাঁদপুর সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রশিদ ও উপ-পুলিশ পরিদর্শক ইসমাইল সহ সঙ্গীয় ফোর্স ।

৬ ফেব্রুয়ারি রবিবার তাকে আটক করে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ সহ ঘটনার সত্যতা যাচাই করে ৭ই ফেব্রুয়ারি ভিকটিম রুপা খানম ও আসামি লম্পট মোহাম্মদ আলীকে আদালতে সোপর্দ করেন। বিজ্ঞ আদালত শুনানি শেষে আলোচিত এই ঘৃণ্য ঘটনায় অভিযুক্ত আসামীকে জেলহাজতে প্রেরণ করার নির্দেশ দেন। ভিকটিম পঞ্চম শ্রেণীতে পড়ুয়া শিশু কন্যা রুপা খানমকে চাঁদপুর আইনজীবী সমিতির বেশ আলোচিত সদস্য বিজ্ঞ এডভোকেট আব্দুল হান্নান কাজীর জিম্মায় ভিকটিমের পিতা মামলার বাদী নুরুল ইসলামের নিকট দেওয়া হয়।

চাঁদপুরের পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ বিপিএম (বার) এর নির্দেশে ৬ ফেব্রুয়ারি চাঁদপুর সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুর রশিদ এর সার্বিক সহযোগিতায় রবিবার দুপুর ৩:৩০ মিনিটে কিলো-১ নিউ ট্রাক রোড দারুল সালাম মসজিদ সংলগ্ন স্ক্রাপ দোকান থেকে ধর্ষক মোহাম্মদ আলীকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসা হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের উপ-পরিদর্শক মোঃ ইসমাইল ঘটনাস্থলে গিয়ে এর সততা নিশ্চিত করেন।

জানা যায় যে শিশু কন্যা রূপার পিতার সহায় সম্পত্তি সর্বনাশা মেঘনার ভাঙ্গনে নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। সহায় সম্পত্তি হারিয়ে রুপার পিতা, মাতা রাস্তা রাস্তায় কাগজ কুঁড়িয়ে তা বিক্রি করে নিদারুণ কষ্টে জীবিকা নির্বাহ করেন। এক ছেলে এক মেয়ের মধ্যে ভিকটিম রুপা খানম ছোট মেয়ে। একেবারেই নিরক্ষর পিতা-মাতা ছেলেকে পড়া-লেখা না করাতে পেরে, পরিবারে শিক্ষার আলো জ্বালানোর বিভোর প্রত্যাশায় অতি কষ্টে ভিকটিম রুপা খানমের পড়ালেখা চালিয়ে আসছেন। তাই তাকে চাঁদপুর সদর হাসপাতালের দক্ষিণ পাশে ৬নং মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়া-লেখা করাচ্ছেন তার টোকাই বাবা-মা ।

একদিকে প্রতারক ও মাদকাসক্ত মোহাম্মদ আলী ভাঙ্গাচুরা ও কুড়ানো কাগজের ব্যবসায়ী অপরদিকে ধর্ষণের শিকার ভিকটিম রুপা খানমের বাবা-মা দুজনেই রাস্তা রাস্তায় কাগজ কুড়িয়ে তার দোকানে বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করে । বিভিন্ন প্রেক্ষাপটে রুপা খানমকে দেখে এই লম্পট মোহাম্মদ আলীর কুরুচিপূর্ণ বাসনা সৃষ্টি হয়। তার এই দুশ্চরিত্র সিদ্ধির প্রত্যাশায় দুই মাস পূর্বে স্ক্রাপ ব্যবসায়ী মুহাম্মদ আলী রুপার পিতা-মাতাকে সাহায্য করবে বলে নিউ ট্রাক রোড দারুল সালাম মসজিদ সংলগ্ন এলাকায় একটি ছোট্র বাসা ভাড়া নিয়ে দেয় এবং তার কথা মত চলার কড়া নির্দেশ দেয় লম্পট মোহাম্মদ আলী। একই সাথে তার দোকানেই কুড়ানো কাগজ ও ভাঙ্গাচুরা বিক্রী করতে বলেন। প্রতারক মোহাম্মদ আলী রুপার পিতা-মাতাকে ভয়-ভীতি ও প্রলোভন দেখিয়ে চাঁদপুর সদর হাসপাতাল সংলগ্ন ৬ নং মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পঞ্চম শ্রেণীতে পড়ুয়া ছাত্রী রুপা খানমের ইচ্চার বিরুদ্ধে জোর পূর্বক ২৪ জানুয়ারি একটি কোট এফিড করে নেন। প্রতারণার মাধ্যমে তৈরি এই ভুয়া কাগজের বলে ২৪ জানুয়ারি প্রতারক মোহাম্মদ আলী রুপাকে স্ত্রী দাবি করে। রুপা ও তার পিতা-মাতাকে ভয়-ভীতি দেখিয়ে শহরের বিপণিবাগ একটি ফ্লাট বাসায়ও নিয়ে যায়। ঐ রাতে প্রতারক মুহাম্মদ আলী রুপার গলায় চাপ, মুখে গামচা দিয়ে চেপে মধ্যযুগীয় বর্বরোচিত কাদায় শিশু কন্যা রুপার সঙ্গে শারীরিক মেলামেশা করে। লম্পট মোহাম্মদ আলীর বর্বরোচিত অত্যাচার থেকে রুপা বাচার জন্য ভোর রাতে ফ্লাট বাসা থেকে পালিয়ে তার বড় ভাইয়ের নিকটা চলে যায়। রুপা খানমের অনলাইন জন্ম সনদে দেখা যায় ০১-০১-২০০৮ সালে সে জন্মগ্রহণ করে, তার অনলাইন জন্মনিবন্ধন নং হলো ২০০৮১৩২১৪০৩১৬২৫১১।

জানা যায়, প্রতারক মোহাম্মদ আলী যে রাত্রে রুপা সঙ্গে পাশবিক নির্যাতনে ব্যস্ত ঠিক তার আগেরদিন তার স্ত্রীর ৪তম ফুটফুটে একটি সন্তান জন্মগ্রহণ করে। এমন ঘৃণ্যতম ঘটনার বিচারের দাবিতে রুপা ও তার পিতা-মাতা মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়ান। একপর্যায়ে এক বিশ্বস্ত সূত্রে চাঁদপুরের পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ বিপিএম (বার) বিষয়টি অবগত হন এবং ভিকটিম পরিবারকে সরাসরি সাক্ষাৎ করার সম্মতি জ্ঞাপন করেন।

এর প্রেক্ষিতেই ভিকটিম ও তার বাবা-মা অভিযোগ পত্র নিয়ে পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ বিপিএম বারের শরণাপন্ন হন।বিস্তারিত শুনে তিনি তাৎক্ষণিক চাঁদপুর সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রশিদ কে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেন।

স্থানীয় গণ্যমান্য মিজান মোল্লা, জসীমউদ্দীন, মনির হোসেন, আজিজুর রহমান ও শাহ আলম সহ আরো অনেকে জানান মুহাম্মদ আলী একজন মাদক ব্যবসায়ীও। স্ক্রাপ ব্যবসার আড়ালে সে মাদক ব্যবসা করে। ৪০ বছর বয়সি এই প্রতারক মুহাম্মদ আলী বিভিন্ন জায়গায় প্রতারণার ফাঁদ সৃষ্টি করে প্রতারণা করে।

তিন কন্যা ও ১টি ছেলে সন্তান সহ চার সন্তানের জনক লম্পট মোহাম্মদ আলী তার স্ত্রীকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে আসছে বলে একাধিক সূত্রে জানা যায়। নিজ স্ত্রী ইয়াবা আসক্ত বলে বেড়ান এই প্রতারক মোহাম্মদ আলী। এ ঘটনায় শহরের নিউট্রাকরোড দারুসসালাম এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। প্রতারক মোহাম্মদ আলীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন নগরবাসীর সহ বিভিন্ন মহল। কিছু কুচক্রী মহল ধর্ষকের পক্ষে অবস্থান নিয়ে দৌড়ঝাঁপ করতে দেখা যাচ্ছে। এদের নিয়েও শহরে তাদের বিরুদ্ধে আলোচনা সমালোচনা হচ্ছে। সব মিলিয়ে শহর ও শহরতলীর বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায় গুঞ্জন চলছে। এ ধরনের ঘটনায় দায়ী ব্যক্তির দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হলে অপরাধীদের জন্য সতর্কবার্তা হিসেবে দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরও খবর
© ২০২০ সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত | দৈনিক জনতার বার্তা বিডি পরিবার
কারিগরি সহায়তায় রাফিউল ইসলাম